মুজিববর্ষে আজেকের যত আয়োজন

জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের জন্মশতবার্ষিকী ও জাতীয় শিশু দিবস উপলক্ষে সকাল ৭টা ৮ মিনিটে ধানমন্ডি-৩২ নম্বরে বঙ্গবন্ধুর প্রতিকৃতিতে শ্রদ্ধা নিবেদন করেন শ্রদ্ধা নিবেদন করেছেন প্রধানমন্ত্রী ও আওয়ামী লীগ সভাপতি শেখ হাসিনা। এই শ্রদ্ধা নিবেদনের মধ্যে দিয়ে মুজিববর্ষের কর্মসূচি শুরু হলো।

মুজিববর্ষ উদযাপন উপলক্ষে রাজধানীর জাতীয় প্যারেডগ্রাউন্ডে জমকালো উদ্বোধনী অনুষ্ঠানের সকল প্রস্তুতি সম্পন্ন হলেও সারাবিশ্বে করোনা ভাইরাস (কোভিড-১৯) বিপর্যয়ের কারণে বাংলাদেশের মানুষের জনস্বাস্থ্যের কথা বিবেচনা করে
আয়োজনটি স্থগিত করা হয়। অন্য সকল জনসমাগমও বাতিল করা হয়।

করোনা ভাইরাসের কারণে মুজিববর্ষের অনুষ্ঠানের সংক্ষিপ্ততার মধ্যে আজ রাজধানীসহ সারাদেশে কিছু আয়োজন থাকছে। এর মধ্যে চমকপ্রদ হচ্ছে আতশবাজী। রাত আটটায় সারাদেশে একযোগে আতশবাজি প্রদর্শনী হবে। এতে রঙিত হবে পুরো দেশ। রাজধানীতে ৩২ নম্বর ধানমন্ডিস্থ বঙ্গবন্ধু ভবনের সামনে এবং ২৩ বঙ্গবন্ধু এভিনিউস্থ আওয়ামী লীগের কেন্দ্রীয় কার্যালয়ে এই আতশবাজি প্রদর্শনী হবে।

এছাড়াও ঢাকার রবিন্দ্র সরেবর, হাতিরঝিল, সোহরাওয়ার্দী উদ্যান, টিএসটি ও জাতীয় সংসদ ভবন এলাকায় আতশবাতি প্রদর্শনী হবে। উল্লেখ্য, প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা গত রাতে আতশবাজী প্রদর্শনীর কিছু স্থান পরিদর্শনও করেছেন।

টুঙ্গিপাড়ায় জাতির পিতার সমাধিতে শ্রদ্ধা নিবেদন ও দোয়া মাহফিলে যোগ দিবেন রাষ্ট্রপতি, প্রধানমন্ত্রী ও মন্ত্রিপরিষদ। সেখানে শিশু সমাবেশ, গ্রন্থমেলা ও সাংস্কৃতিক অনুষ্ঠান হবে। দিনটিতে মসজিদ, মন্দির, গীর্জা ও প্যাগোডাসহ দেশের সকল ধর্মীয় উপাসনালয়ে বিশেষ প্রার্থনা করা হবে। এতিম ও দুস্থদের মাঝে খাবার ও ত্রাণ বিতরণ হবে।

বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের জন্মশতবার্ষিকী উপলক্ষে ঢাকা মহানগর উত্তরের বনানী করাইল বস্তি এবং ঢাকা মহানগর দক্ষিণে জাতীয় মসজিদ বাইতুল মোকাররম প্রাঙ্গণে এতিম ও দুস্থদের মাঝে খাবার ও মিষ্টি বিতরণ করা হবে।

এছাড়া গণমাধ্যমে প্রচারিত হবে একাধিক অনুষ্ঠান।

এছাড়া সংসদ ভবন, সরকারি অফিস-আদালত, ফুট ওভার ব্রিজে করা হয়েছে আলোকসজ্জা। সন্ধ্যা পর রাজধানী হয়ে ওঠেছে এক মনোরম আলোকউজ্জ্বল দৃশ্যে। এছাড়া বঙ্গবন্ধুর ছবি ও কথা দিয়ে রাস্তায় ফেস্টুন, পোস্টার, বড় বড় ছবি ও ব্যানার টানানো হয়েছে।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *