প্রথম অ্যানিমেশন ছবি

অ্যানিমেশন ছবি মানে ছোটদের ছবি এমন ধারণা বদলে গেছে। অ্যানিমেশন ছবি এখন সবার। ছোট-বড় সবার জন্য উপভোগ্য হয়ে উঠেছে অ্যানিমেশন ছবি। আর অ্যানিমেটেড ছবি নির্মাণে পিক্সার অ্যানিমেশন স্টুডিও’র জুড়ি নেই। অ্যানিমেশন ছবির দুনিয়ায় অদ্বিতীয় নাম ওয়াল্ট ডিজনি পিকচার্সের সঙ্গে যুক্ত হয়ে পিক্সার নির্মাণ করেছে অসাধারণ সব ছবি।

টয় স্টোরি, মনস্টার ইঙ্ক, ফাইন্ডিং নিমো, দ্য ইনক্রেডিবলস, কারস, ওয়ালি, রাটাটুলি, আপ, ব্রেভ, দ্য গুড ডাইনোসর, ইনসাইড আউট, ফাইন্ডিং ডোরি ছবিগুলো বলে দেয় তাদের সাফল্যের কথা। গেল বছর তারা সাড়া জাগিয়েছিলো ‘টয় স্টোরি ৪’ দিয়ে। ২০২০ সালে তারা কি উপহার নিয়ে আসে সেটা দেখার অপেক্ষায় আছেন অনেক দর্শক। সেই অপেক্ষার অবসান হল শুক্রবার (৬ মার্চ)।

এ বছরের প্রথম অ্যানিমেশন ছবি ‘অনওয়ার্ড’ মুক্তি পেল এদিন। সুখবর বাংলাদেশের দর্শকদের জন্যও। আন্তর্জাতিক মুক্তির দিনেই ঢাকার স্টার সিনেপ্লেক্সে মুক্তি পেয়েছে ছবিটি। ড্যান স্ক্যানলনের পরিচালনায় এ ছবির বিভিন্ন চরিত্রে কন্ঠ দিয়েছেন টম হল্যান্ড, ক্রিস প্র্যাট, জুলিয়া লুইস, ওক্টাভিয়া স্পেনসার প্রমুখ।

ইয়ান লাইটফুট এবং বার্লি লাইটফুট দুই ভাই। এই দুই কিশোরের বাবা নেই। ইয়ানের জন্মের আগেই বাবা মারা যায়। আর বার্লি তখন এত ছোট ছিলো যে, বাবার স্মৃতি তার মনে নেই। পূর্বনির্ধারিত উপহার হিসেবে তাদের বাবা একজন জাদুকর কর্মীকে পাঠায় তাদের কাছে। ওই কর্মী একটা জাদুর কাঠি নিয়ে আসে যার মাধ্যমে ২৪ ঘন্টার জন্য তাদের বাবাকে ফিরিয়ে আনবে যাতে তারা বাবাকে দেখতে পায়। এ নিয়ে একের পর এক রহস্যময় ঘটনা ঘটতে থাকে। দুই ভাইয়ের পাল্টাপাল্টি চেষ্টা আর জাদুকরের রহস্য মিলে তৈরি হয় মজার কাহিনী।

গেল ২১ শে ফেব্রুয়ারি ৭০তম বার্লিন আন্তর্জাতিক চলচ্চিত্র উৎসবে ছবিটির প্রিমিয়ার হয়। সেখানে অনেকেই ছবিটির প্রশংসা করেন। রোটেন টমেটোস-এর রিভিউতেও ভালো রেটিং পেয়েছে ছবিটি। ফলে নির্মাতারা সাফল্যের ব্যাপারে আশাবাদী হতেই পারেন। আর দর্শকরা সিনেমা হলে যাওয়ার প্রস্তুতি নিয়ে ফেলতে পারেন।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *