নাঙ্গলকোটে চাচার ধর্ষণে অন্তঃসত্ত্বা ভাতিজি

নাঙ্গলকোটে চাচার ধর্ষণে অন্তঃসত্ত্বা ভাতিজি
নাঙ্গলকোটে চাচার ধর্ষণে অন্তঃসত্ত্বা ভাতিজি

উর্মি রহমানঃ

কুমিল্লার নাঙ্গলকোটে চাচার ধর্ষণে ভাতিজির অন্তঃসত্ত্বা হওয়ার অভিযোগ পাওয়া গেছে। এ ঘটনায় চাচা সোহেলকে (৪৫) গ্রেফতার করেছে পুলিশ। তিনি উপজেলার বাঙ্গড্ডা ইউনিয়ন পরিষদের হেসিয়ারা গ্রামের আব্দুল মান্নানের ছেলে। রোববার সকালে সোহেল স্বেচ্ছায় নাঙ্গলকোট থানায় এসে ধরা দিলে তাকে গ্রেফতার করে পুলিশ।

এ সময় তিনি নিজেকে নির্দোষ বলে দাবি করেন। মামলা ও পুলিশ সূত্রে জানা যায়, ওই ভাতিজির মা ক্যান্সার আক্রান্ত হলে গত বছরের ১৪ নভেম্বর কুমিল্লা মেডিকেল সেন্টার হাসপাতালে চিকিৎসার জন্য নিয়ে যাওয়া হয়। এতে তার মায়ের চিকিৎসা নিয়ে গত বছরের ১৫ থেকে ১৮ নভেম্বর কুমিল্লাতে ব্যস্ত থাকেন তার বাবা ও ভাই। এ সময় বাড়িতে কেউ না থাকায় চাচা সোহেল তাকে ধর্ষণ করেন।

পরে সে অন্তঃসত্ত্বা হয়ে পড়ে। বর্তমানে মেয়েটি ৮ মাসের গর্ভবতী। এ ঘটনায় শনিবার ওই ধর্ষিতার বাবা বাদী হয়ে নাঙ্গলকোট থানায় মামলা করলে রাতেই মামালার তদন্ত কর্মকর্তা উপপরিদর্শক আখতার হোসেন সঙ্গীয় ফৌর্সসহ আসামিকে গ্রেফতারের জন্য বিভিন্ন স্থানে অভিযান চালায়।

পরে ইউপি মেম্বারের সহযোগিতায় থানায় আত্মসমর্পণ করেন সোহেল। নাঙ্গলকোট থানার অফিসার ইনচার্জ (ওসি) বখতিয়ার উদ্দিন চৌধুরী বলেন, মেয়ের দেওয়া তথ্যের ভিত্তিতে বাবা বাদী হয়ে মামলা করেন। আসামি সোহেল আত্মসমর্পণ করলে রোববার সকালে তাকে আদালতের মাধ্যমে জেলহাজতে পাঠানো হয়। ভিকটিমকে পরীক্ষার জন্য কুমিল্লা মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে পাঠানো হয়েছে। রিপোর্ট আসলে এ ঘটনার সঠিক কারণ জানা যাবে।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *