দিল্লিতে পরিকল্পিত গণহত্যা হয়েছে: মমতা

ভারতের পশ্চিমবঙ্গের মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায় বলেছেন, দিল্লিতে দাঙ্গা নয়, পরিকল্পিত গণহত্যা হয়েছে। আজ সোমবার কোলকাতার নেতাজি ইন্ডোর স্টেডিয়ামে তৃণমূল কংগ্রেস কর্মীদের উদ্দেশে বক্তব্য রাখার সময় তিনি ওই মন্তব্য করেন।

দিল্লির সাম্প্রতিক সহিংসতা প্রসঙ্গে তৃণমূল সভানেত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায় বলেন, ‘আমরা দাঙ্গাকে অত্যন্ত ঘৃণা করি। এটা দাঙ্গা নয়, আমাকে অনেকে বলেছেন, এটা পরিকল্পনা করে একটা গণহত্যা করা হয়েছে। এটা প্ল্যানড জেনোসাইড। পরে দাঙ্গার রূপ দিয়েছে। গতকালও ৪টা বডি (লাশ) পাওয়া গেছে।’

তিনি বলেন, ‘প্রতিদিন নালা খুলছে, আর লুকোনো ডেডবডিগুলো বেরোচ্ছে! কেন হল এরকম? আমাদের হাতে নয় কেবল রাজ্য পুলিশ থাকে। দিল্লির সরকার তো কেন্দ্রীয় সরকারের অধীনে। দিল্লি পুলিশ ছিল, সিআরপিএফ ছিল, সিআইএসএফ ছিল, আর্মি ছিল, এসএসবি ছিল। সব থাকা সত্ত্বেও কেন শিখ দাঙ্গার পরে (১৯৮৪) এতবড় দাঙ্গা দিল্লিতে সঙ্ঘটিত হল? এবং বিজেপি এটা করবার পরেও কোনও ক্ষমা চাইল না! ক্ষমা চাওয়া তো দূরের কথা নির্লজ্জের মতো এখানে এসে বলছে আমায় দখল নিতে হবে। বুঝুন তাহলে।’

মমতা বলেন, ‘ওরা যে জায়গাগুলোর দখল নিয়েছে তার বারোটা বাজিয়ে ছেড়ে দিয়েছে। দিল্লিতে পার্লামেন্টের ৭ আসনের মধ্যে ৭ টিতেই (বিজেপি) জিতেছে। জিতে লোককে কী উপহার দিয়েছে? রক্ত আর দাঙ্গার আগুন! আসামে জিতেছে, কী উপহার দিয়েছে? দাঙ্গা, রক্ত, আগুন। আর ‘এনআরসি’র নামে হত্যা। ত্রিপুরায় জিতেছে, দেখে আসুন কোনও মানুষের সেখানে কথা বলবার অধিকার নেই! উত্তর প্রদেশে দেখে আসুন, সেখানে একটা মানুষ থানায় ডায়েরি পর্যন্ত করতে পারে না। মেয়েরা অত্যাচারিত হয়ে অভিযোগ করলে হয় তাঁকে পুড়িয়ে মারা হয়, নয় তার বাড়িতে কাউকে পুড়িয়ে মারা হয়! কোনও বিচার নেই।’

দিল্লির সহিংসতায় বিজেপি নেতার উসকানিমূলক বক্তব্য প্রসঙ্গে মমতা বলেন, ‘এতগুলো মানুষ খুন হওয়ার পরেও কেন বিজেপি’র নেতা যিনি প্ররোচনা দিয়েছিলেন, আজ পর্যন্ত গ্রেফতার হয়নি? কেন হয়নি? কোলকাতার রাস্তায় যারা স্লোগান দিয়েছিল (গুলি মারো সালো কো) কাল রাতের মধ্যে আমি তিন জনকে গ্রেফতার করিয়েছি। কারণ, কোলকাতা পুলিশ কোলকাতা পুলিশের কাজ করবে। প্রশাসন প্রশাসনের কাজ করবে।’

তিনি বলেন, এটা দিল্লি নয়, এটা কোলকাতা। কাগজে বা টিভিতে যদি কেউ ওদের (উসকানিমূলক স্লোগানদাতাদের) চিহ্নিত করতে পারেন পুলিশকে জানানোর জন্যও মুখ্যমন্ত্রী সকলের উদ্দেশ্যে আহ্বান জানান।

মমতা এদিন উপস্থিত সবাইকে নিয়ে দিল্লি দাঙ্গায় নিহতদের জন্য এক মিনিট নীরবতা পালন করেন। তিনি এদিন আবেগাপ্লুত হয়ে বলেন, ‘আমার মন কাঁদছে, আমার হৃদয় কাঁদছে, আমরা গভীরভাবে মর্মাহত! আমরা দুঃখিত! আমরা ধিক্কার জানাই। গত কয়েকদিন ধরে দিল্লির মাটিতে যেভাবে মানুষ হত্যা হয়েছে আমি মনে করি এটা একটা প্ল্যানড জেনোসাইড। গণহত্যা! পরে সাম্প্রদায়িকতায় রঙ দেওয়া হয়েছে। আমরা এটাকে ধিক্কার জানাই।’

‘আজ থেকে শপথ নিতে হবে যতক্ষণ পর্যন্ত দেশ থেকে এই স্বৈরাচারী সরকারকে আমরা বিদায় দিতে না পারছি, ততক্ষণ পর্যন্ত আমাদের সংগ্রাম থেমে থাকবে না, আমাদের লড়াই থেমে থাকবে না। আমরা লড়ব এবং জিতবই’ বলেও মমতা বন্দ্যোপাধ্যায় এদিন উপস্থিত নেতা-কর্মীদের উদ্দেশ্যে অত্যন্ত জোরালোভাবে বার্তা দিয়েছেন।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *