করোনা: ৩২৩ প্রতিষ্ঠানের প্রস্তুত ৩৯৮২ জন সেবাদানকারী

করোনা ভাইরাস (কোভিড-১৯) মোকাবিলায় সারাদেশে প্রাতিষ্ঠানিক কোয়ারেন্টিনের জন্য ৩২৩টি প্রতিষ্ঠানে ৩৯৮২ জন সেবাদানকারী প্রস্তুত রয়েছে। এদের মধ্যে এক হাজার ১২৩ জন চিকিৎসক, এক হাজার ৫৭৫ জন নার্স ও অন্য সেবাদানকারী এক হাজার ২৮৪ জন কর্মী প্রস্তুত আছেন। এসব প্রতিষ্ঠানে ১৮ হাজার ৯২৩ জনকে সেবা দেওয়া যাবে।

শুক্রবার (২৭ মার্চ) সন্ধ্যায় স্বাস্থ্য অধিদপ্তরের হেলথ ইমারজেন্সি অ্যান্ড অপারেশন সেন্টার ও কন্ট্রোল রুম থেকে এ তথ্য নিশ্চিত করা হয়েছে।

স্বাস্থ্য অধিদপ্তরের সমন্বিত নিয়ন্ত্রণ কক্ষের সর্বশেষ তথ্য অনুযায়ী, করোনা ভাইরাস সংক্রমণ সংক্রান্ত তথ্য ও চিকিৎসাসেবা দেওয়া ২৭ হাজার ৩৭৯ জন চিকিৎসক ও শিক্ষার্থী নিবন্ধন করেছেন। এদের মধ্যে কোভিড-১৯ বিষয়ক অনলাইন কোর্স সম্পন্ন করেছেন পাঁচ হাজার ৭৬৫ জন। পাশাপাশি হটলাইন সিস্টেমে চিকিৎসাসেবা ও তথ্য দেওয়ার জন্য যুক্ত হয়েছেন ৯৬৯ জন।

স্বাস্থ্য অধিদপ্তরের অতিরিক্ত মহাপরিচালক (প্রশাসন) অধ্যাপক ডা. নাসিমা সুলতানা স্বাক্ষরিত এক বিজ্ঞপ্তিতে জানানো হয়, গত ২৪ ঘণ্টায় সারাদেশে হোম কোয়ারেন্টিনসহ হাসপাতাল ও অন্য কোয়ারেন্টিনে আছেন তিন হাজার ৩৭৪ জন। আর গত ২১ জানুয়ারি থেকে কোয়ারেন্টিনে আছেন ৫০ হাজার ৭৩৫ জন। কোয়ারেন্টিন থেকে ছাড়পত্র পেয়েছেন ২০ হাজার ৮৯৬ জন। বর্তমানে কোয়ারেন্টিনে আছেন ২৯ হাজার ৭৩৯ জন।

এ পর্যন্ত ৩৩১ জন আইসোলেশনে ছিলেন। এদের মধ্যে ছাড়পত্র নিয়েছেন ২৮৪ জন। গত ২৪ ঘণ্টায় আইসোলেশনে আছেন ৪৭ জন।

রোগতত্ত্ব, রোগনিয়ন্ত্রণ ও গবেষণা ইনস্টিটিউটের (আইইডিসিআর) পরিচালক অধ্যাপক ডা. মীরজাদী সেব্রিনা ফ্লোরা প্রতিদিনের নিয়মিত ব্রিফিংয়ে বলেছেন, এ পর্যন্ত এক হাজার ২৬ জন ব্যক্তির কোভিড-১৯ পরীক্ষা করা হয়েছে। যার মধ্যে গত ২৪ ঘণ্টায় ১০৬ জনের নমুনা পরীক্ষা করে চারজনের নামুনা পজিটিভ এসেছে। নতুন চারজনসহ শনাক্ত রোগীর সংখ্যা ৪৮ জন।

কোভিড-১৯ আক্রান্ত রোগীর মধ্যে মৃত্যু হয়েছে পাঁচজনের। সুস্থ হয়ে বাড়ি গেছেন ১১ জন। চিকিৎসাধীন আছেন ৩২ জন।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *