‘আহসান’ ‘এহসান’ বিড়ম্বনায় জয়া

গোপালগঞ্জের মেয়ে জয়া মাসউদ। মুক্তিযোদ্ধা বাবা এ এস মাসউদ এবং মা রেহানা মাসউদ তাকে এই নামেই ডাকেন। এটুকু পড়ে পাঠক কৌতূহলী হতে পারেন- কে এই জয়া মাসউদ?

জানিয়ে রাখি, তিনি এখন বেশ প্রশংসিত চলচ্চিত্রশিল্পী। এপার বাংলা-ওপার বাংলায় অনেক ভক্ত রয়েছে তার। পাঠক, হয়তো এখনও ভাবছেন- তিনি কে হতে পারেন?

সত্যি বলতে, ‘জয়া মাসউদ’কে চেনা একটু কষ্টকর হতে পারে। বিশেষ করে কারো নাম যদি বারবার বদলে যায় তাহলে বিভ্রান্তি আরো বাড়ে! জয়ার ক্ষেত্রেও একই ঘটনা ঘটেছে। দশর্ক নন্দিত এই শিল্পীর নাম পরিবর্তন হয়েছে দুইবার। এই পরিবর্তনে তার বিশেষ কোনো ভূমিকা ছিল না। তবে এখন তিনি বিষয়টি নিয়ে মহাবিরক্ত! বিরক্তি তিনি আগেও কয়েক বার প্রকাশ করেছেন। কোনো সুরাহা হয়নি। সর্বশেষ গতকাল তিনি এ প্রসঙ্গে ফেইসবুকে একটি স্ট্যাটাস দিয়েছেন।

দুই বাংলার জনপ্রিয় অভিনেত্রী জয়া আহসানের কথা। জয়া মাসউদ নামে অভিনয় শুরুর পর ক্যারিয়ারের মাঝ পথে নামের শেষ অংশ পাল্টে তিনি হয়ে গেলেন- জয়া আহসান। এই নামেই তিনি পরিচিত। তবে পশ্চিমবঙ্গের গণমাধ্যম তার নাম লিখছে- জয়া এহসান! ভুল নাম চর্চার অভিযোগ তুলে কয়েক মাস আগে কলকাতার এক গণমাধ্যমে দেয়া সাক্ষাৎকারে জয়া বলেছিলেন, ‘আমার নাম জয়া আহসান, এহসান নয়।

কিন্তু কে শোনে কার কথা- তথৈবচ! এরপরই ফেইসবুকে জয়ার পুনরায় স্মরণ করিয়ে দেয়া। তিনি লিখেছেন: ‘‘জয়া ‘এহসান’ নয়, জয়া ‘আহসান’’।

‘জয়া মাসউদ’ থেকে তিনি ‘জয়া আহসান’ হলেন কীভাবে? অনেকের মনে প্রশ্ন জাগতে পারে। জয়া ক্যারিয়ার শুরুর পর মডেল ও অভিনেতা ফয়সাল আহসানের সঙ্গে বিবাহ বন্ধনে আবদ্ধ হন। এরপরই নামের শেষ অংশটুকু বদলে ‘আহসান’ যোগ করে নেন।

ওপার বাংলার গণমাধ্যম ‘জয়া এহসান’ লেখে। বলার পরও তারা এভাবেই লিখে যাচ্ছে। দেখা যাক জয়ার ফেইসবুক স্ট্যাটাস তাদের ভুল ভাঙাতে পারে কিনা?

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *